Google Keep – আপনার ভার্চুয়াল নোটবুক

0
170
Google Keep

গুগল কিপ এমন একটি উপযোগী পরিষেবা যার মাধ্যমে আপনি লেখালেখি, ছবি, আঁকা সহযোগে নোট নিতে পারবেন, নিজের প্রয়োজন মতো লিস্ট করতে পারবেন এবং ওই নোট নির্দিষ্ট সময়ে বা নির্দিষ্ট স্থানে মনে করিয়ে দেওয়ার জন্য নির্দেশ দিতে পারবেন। গুগল কিপ এ আপনি যা কিছু করবেন সেটি নিজেথেকেই সেভ হয়ে যায় (আলাদা করে কোনো সেভ অপসন নেই) এবং আপনার গুগল একাউন্টের সঙ্গে অটো-সিঙ্ক হয়ে ক্লাউডে স্টোর হয়, যার ফলে কোন তথ্য হারানোর ভয় থাকেনা। ক্লাউডে স্টোর হওয়ার আরও একটি সুবিধা হলো বিভিন্ন মাধ্যম যেমন মোবাইল, ট্যাব ও ওয়েব ভার্সনে অনায়াসে ব্যবহার করতে পারা।

এবার জেনে নেওয়া যাক গুগল কিপের সুবিধাগুলি কি কি

  • কোনো লেখা, ছবি, লিংক, চেকবক্স লিস্ট সহযোগে নোট নিতে পারবেন, এছাড়াও ড্রয়ইং অপসন রয়েছে নিজে এঁকে নেওয়ার জন্য।
  • ভয়েস ইনপুট টুল ব্যবহার করে, ভয়েস রেকর্ডিং সহ নোট নিতে পারবেন এবং আপনি যা বলবেন সেটি নিজে থেকেই লেখা হয়ে যাবে (ভয়েস টাইপিং ইংরেজি ভাষাতে কাজ করে)।
  • প্রতিটি নোটের একটি করে শিরোনাম দেওয়া যায়।
  • নোটগুলিকে খুব সহজেই বন্ধুগণ ও পরিবারবর্গের মধ্যে শেয়ার করা যায়
  • কোলাবরেটর যোগ করে যৌথ উদ্যোগে অনেকজন মিলে একসঙ্গে কোনো নোট তৈরী করা যায়।
  • কোনো নোট কোনো স্থানে মনে করিয়ে দেওয়ার জন্য লোকেশন রিমাইন্ডার আর কোনো সময়ে মনে করিয়ে দেওয়ার জন্য টাইম রিমাইন্ডার ব্যবহার করতে পারেন।
  • অনেক নোটস এর মাঝে, কোনো নোট খুঁজে পাওয়ার জন্য রয়েছে সার্চ অপসন, বিভিন্ন ভাবে সার্চ করতে পারবেন।
  • নোটগুলিকে বিভিন্ন লেবেলে ট্যাগ করে, লেবেল অনুযায়ী সাজিয়ে রাখতে পারবেন।
  • রয়েছে কালার অপসন, মনের ভাব অনুযায়ী নোট গুলিকে রং দিয়ে সাজাতে পারবেন
  • কোনো বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ নোট সবার উপরে রাখতে পিন নোট অপসন ব্যবহার করতে পারবেন।
  • নোট আর্কাইভ করারও সুযোগ রয়েছে।
  • গুগল কিপ – স্মার্টফোন, ট্যাবলেট, কম্পিউটার ও অ্যান্ড্রয়েড ওয়ারেবলস এবং গুগল ক্রোম এক্সটেনশনের মাধ্যমে কাজ করে এবং আপনি যা কিছুই করেন সেটি আপনার একাউন্টের মাধ্যমে সমস্ত ডিভাইসগুলিতে সিঙ্ক হয়ে যায় যারফলে আপনার নোটস সবসময় আপনার সঙ্গে থাকে।
  • নোটের মধ্যে কোনো ওয়েব লিংক থাকলে সেটির প্রিভিউ দেখা যায়।
  • টেক্সট গ্র্যাবিং অপশনের মাধ্যমে নোটে থাকা কোনো ছবির মধ্যের ইংরেজি লেখা বের করা যায়।
  • অনলাইন এবং অফলাইন দুই অবস্থাতেই ব্যবহার করা যায়তবে সিঙ্ক্রোনাইজেশন এর জন্য অনলাইন থাকা জরুরি। অফলাইন অবস্থাতে কাজ করলে সেটি ডিভাইসে স্টোর থাকবে এবং অনলাইন হলে নিজে থেকেই ক্লাউডে স্টোর হয়ে যাবে।

কিভাবে পাবেন গুগল কিপ ?

স্মার্টফোনে বা ট্যাবে গুগল কিপ ব্যবহার করতে চাইলে গুগল প্লে ষ্টোর বা অ্যাপল অ্যাপস্টোর থেকে Google Keep ইনস্টল করে নিতে হবে। স্মার্টফোন তো আমাদের সর্বক্ষণের সঙ্গী এতেই গুগল কিপ ব্যবহার করা সহজ হবে বলে আমার মনে হয়।

ওয়েব ব্রাউজার থেকে গুগল কিপ ব্যবহার করতে চাইলে যেকোনো ওয়েবসাইট ব্রাউজার যেমন গুগল ক্রোম, মোজিলা ফায়ার ফক্স, ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার, মাইক্রোসফট এজ, অ্যাপল সাফারি, অপেরা ইত্যাদি থেকে http://keep.google.com এই লিংকটি খুলে আপনার গুগল একাউন্ট দিয়ে সাইন ইন করলেই আপনার গুগল কিপ ড্যাশবোর্ড খুলে যাবে। এক্ষেত্রে আপনাকে কোনো সফটওয়্যার ইনস্টল করতে হয়না।

এছাড়াও কম্পিউটার বা ট্যাবে গুগল ক্রোম ব্রাউজারের ক্রোম অ্যাপের মাধ্যমেও গুগল কিপ ব্যবহার করা যেতে পারে। এক্ষেত্রে শুধুমাত্র একবারই আপনাকে গুগল কিপ ক্রোম ব্রাউজারে ইনস্টল করে নিতে হবে। ক্রোম ওয়েব স্টোর খুলে গুগল কিপ খুঁজে নিতে পারেন অথবা এই লিংকের মাধ্যমে http://g.co/keepinchrome গুগল ক্রোমে কিপ ইনস্টল করে নিতে পারেন। ইনস্টল করার পর গুগল ক্রোমের অ্যড্রেস বার এর পাশে গুগল কিপ এর আইকন দেখতে পাবেন সেখান থেকে আপনি কাজ করতে পারবেন।

যেভাবে গুগল কিপ ব্যবহার করতে পারেন

  • নোট নেওয়া শুরু করতে গুগল কিপ খুলুন, লেখার জন্য “Take a note…” অপশনে ক্লিক করুন। লিস্ট বানাতে হলে চেকবক্স আইকনে ক্লিক করুন। ড্রয়িং সহযোগে নতুন নোট নেওয়ার জন্য ব্রাশ আইকনে ক্লিক করুন। ছবি সহযোগে নোট নেওয়ার জন্য ইমেজ আইকনে ক্লিক করুন। ভয়েস রেকর্ডিং সহ নোট নেওয়ার জন্য মাইক আইকনে ক্লিক করুন। নোট লেখা শুরু করলেই উপরের দিকে শিরোনাম লেখার জায়গা পাবেন।
  • মুদিখানার ফর্দ, শপিং লিস্ট, বেড়াতে গিয়ে কি কি করবেন ইত্যাদির লিস্ট বানানোর জন্য গুগল কিপের লিস্ট অপসন বেশ কাজের।
  • কোনো কিছু কোনো নির্দিষ্ট স্থানে বা কোনো সময়ে মনে করিয়ে দেওয়ার জন্য কিপে লিখতে পারেন এবং লোকেশন/টাইম রিমাইন্ডার সেট করতে পারেন প্রয়োজনে রিপিট রিমাইন্ডারও সেট করতে পারেন। কোনো নোট লিখে বেল (রিমাইন্ডার) আইকন এ ক্লিক করে প্রয়োজন মাফিক রিমাইন্ডার সেট করতে পারবেন।
  • ইলেক্ট্রনিক মিডিয়াতে কোনো দীর্ঘ পোস্ট করবেন ? সেটির লেখাটা কিপে প্রস্তুত করে নিতে পারবেন, মিলিয়ে নিতে/সংশোধন করতে পারবেন যতবার খুশি। সব শেষে পোস্ট রেডি হলে কিপ থেকে কপি করে যেখানে দরকার সেখানে পেস্ট। এরফলে বারবার পোস্ট এডিট করার থেকে আপনি বাঁচবেন।
  • কোনো নোট লেবেল এর সঙ্গে ট্যাগ করে দিতে পারবেন তাহলে লেবেল অনুযায়ী খুঁজেপেতে সুবিধা হবে। খুব সহজে লেবেল যোগ করতে গেলে নোট লেখার শেষে # লিখে লেবেলের নাম লিখবেন অথবা আগে থাকা লেবেল বেছে নিতে পারবেন। যেমন ধরুন আপনি কোনো ট্যুর প্ল্যান করছেন সেক্ষেত্রে আপনার নোট লেখার শেষে #Tour যোগ করে দিলেই উক্ত নোটটি Tour নামক লেবেলের অন্তর্ভুক্ত হয়ে যাবে। এক্ষেত্রে মনে রাখবেন # লেখার পর কোনো স্পেস থাকবে না।
  • ধরা যাক বন্ধুরা মিলে একসঙ্গে কিছু প্ল্যান করছেন সেক্ষেত্রে নোট শুরু করে বন্ধুদের কোলাবরেটর হিসাবে যোগ করতে হবে তারপর কোলাবরেটররা একসঙ্গে কাজ করতে পারবেন। নোট লেখা শুরু করে স্ক্রিনে থাকা মোর অপশন থেকে (⁝) কোলাবরেটর অপশনে গিয়ে ইমেল আইডি দিয়ে অপরজনকে সংযোজন করতে পারবেন।

এখানেতো প্রাথমিক কিছু ব্যবহারিক প্রয়োগের কথাবলা হলো। গুগল কিপ ব্যবহার করতে থাকুন আর নিজের মতো করে কাজে লাগান। একদিন হয়তো আপনি, আমার থেকে বেশি পটু হয়ে উঠবেন গুগল কিপের ব্যবহারিক প্রয়োগের ক্ষেত্রে।

প্রতিনিয়ত আমাদের মনে কত চিন্তা ভাবনার উদ্ভব হয়! তারইমধ্যে অনেক চিন্তা উবে যায়, আবার অনেক চিন্তা ঘুরে ফিরে আসে, নস্টালজিয়া কাজ করে। আসলে চিন্তাভাবনা গুলো পুরানো হলে স্মৃতি হয়, আর স্মৃতি যত পুরানো হয়, তত তার মূল্য বাড়ে আমাদের কাছে। আপনার চিন্তা ভাবনার ফসল গুলিকে সাজিয়ে গুছিয়ে সঞ্চিত রাখতে ব্যবহার করতে পারেন গুগল কিপ।

নতুন লেখা লেখি শুরু করেছি, যথা সম্ভব সহজভাবে বাংলাতে টেক টপিক কভার করার চেষ্টা করছি। আমার এই উদ্যোগ যদি ভালো লেগে থাকে। সোশ্যাল মিডিয়াতে, বিভিন্ন গ্ৰুপে শেয়ার করে দিও এটাই আমাকে অনুপ্রেরণা দেবে। ধন্যবাদ! পরের পোস্টে দেখা হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here